ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিব ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • বুধবার   ১২ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৭ ১৪২৭

  • || ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

দৈনিক কিশোরগঞ্জ
৮০০

কুলিয়ারচরে

মাজার ব্যবসার আড়ালে চলছে অনৈতিক কর্মকান্ড

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০১৯  

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে অজ্ঞতা আর ধর্মের নামে অন্ধতার ফলে ব্যাঙ্গের ছাতার মত আনাচে কানাচে গজিয়ে উঠছে মাজার। বিভিন্ন স্থানে গড়ে ওঠা এ সব মাজার গুলোতে ধর্ম আর আধ্যাত্মিকতার নানা দোহাই দিয়ে চলছে মাদক সেবন আর জমজমাট দেহ ব্যবসা পাশাপাশি অনৈতিক কর্মকান্ড। এ উপজেলায় প্রশাসনের নজরদারিতা না থাকায় মাজার ব্যবসা এখন জমজমাট আকার ধারণ করছে। সরেজমিন উপজেলার ফরিদপুর, ছয়সূতী, ওসমানপুর, সালুয়া, গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর সহ পৌর এলাকায় রয়েছে ভন্ডপীরদের মাজার। সবচেয়ে বেশি মাজার চোখে পরে ফরিদপুর ইউনিয়নে। নামধারী পীর- ফকির ও তার অনুসারীরা গায়ে লাল শালু, হাতে লাঠি আর মাথায় জটা চুল নিয়ে যত্র-তত্র মোমবাতি আর আগরবাতির সমন্বয়ে তৈরী করে যাচ্ছে মাজার। ফরিদপুরের সুইচগেইট সংলগ্ন স্থানে কলা পাতা দিয়ে বেড়া তৈরি করে তার ভেতর আস্তানা বানিয়ে তার নাম দেওয়া হয় ডা¹া শাহ্ এর মাজার। উক্ত মাজারের পীর মরম আলী বলে জানা যায়। এ ছাড়া ছয়সূতী ইউনিয়নের হাঁপানিয়া গ্রামে শফিক শাহ্, সালুয়া ইউনিয়নের বাজরা এলাকার গিট্টু শাহ্ মাজার ব্যবসায়ের মাধ্যমে জন সাধারণকে ধোঁকা দিয়ে আসছে বলে স্থানীয়রা জানান। এ উপজেলায় বেশকিছু ভন্ড পীর মদক ব্যবসা ও দেহ ব্যবসা করিয়ে আজ কোটি কোটি টাকার মালিক বলে জানা যায়। ভন্ড পীরেরা মাস্তান আর দালালদের নিয়ন্ত্রনে থেকে নানা অপকর্ম সহ মাদক ও নারী ব্যবসা করে গেলেও ভয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেনা স্থানীয়রা।

কিশোরগঞ্জ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর