ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিব ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

শনিবার   ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৯ ১৪২৬   ১৬ রবিউস সানি ১৪৪১

২৭২

বাংলাদেশের গণমাধ্যম অনেক স্বাধীন: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০১৯  

দেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই, এমন অভিযোগ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে করা হয় বলে দাবি করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তিনি বলেন, বাংলাদেশে পত্রিকার, টেলিভিশনের সংখ্যা অনেক বেশি। প্রতিদিন রাতে টকশোতে যে ভাষায় সমালোচনা করা হয়, তা কোনো দেশেই হয় না। যারা স্বাধীনতা নেই বলেন, তারা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বলেন। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদেরকে যখন বিদেশের দুই-একটি জায়গা থেকে এসব বিষয়ে বলা হয়েছে, আমরা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছি, যে না, আপনাদের চেয়েও আমাদের দেশের মিডিয়া অনেক বেশি স্বাধীন। যেভাবে সরকারের সমালোচনা করা হয় সে জায়গায় কোনো দেশের কেউ বলতে পারবে না বাংলাদেশের মিডিয়ায় সরকারের হস্তক্ষেপ আছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন হলে রাজশাহী বিভাগ সাংবাদিক সমিতির নতুন কমিটির অভিষেক ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে রাজনীতিবিদদের বিভিন্ন পত্রিকা বের করার প্রবণতাকে রাজনীতির জন্য খারাপ উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, স্থানীয়ভাবে দেখি, যে সবারই একটা করে পত্রিকা আছে। খোঁজ নিয়ে দেখবেন বাংলাদেশের রাজনীতিবিদের প্রায় সবারই একটা করে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে পত্রিকা আছে। অন্ততপক্ষে একটি অনলাইন পত্রিকা রয়েছে। আমার মনে হয় এটি একটি অসুস্থ প্রতিযোগিতা। রাজনীতির জন্য যেমন খারাপ, এটা সাংবাদিকতার জন্যও খারাপ। রাজনীতিবাদরা এটা বুঝতে পারছেন না, তবে সাংবাদিকদের এটা বুঝতে হবে। তাদের উচিৎ এমন প্রতিযোগিতা থেকে বিরত থাকা।

তিনি বলেন, আমরা দেখছি বেশ কিছু মিডিয়া হাউজ সাংবাদিকদের বেতন সময়মতো দিতে পারছেন না। একটি রাষ্ট্র যখন নিম্ন আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয় এবং উন্নত দেশ হওয়ার পথে এগিয়ে যায়, তখন সেদেশে শুধুমাত্র রফতানিমুখী পণ্যের বাজারের কর্মপরিবেশ আইএলও'র মানদণ্ডে হবে, তা কিন্তু নয়। সাংবাদিকতার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মী ভাই-বোনদের জন্য একই মানদণ্ড থাকতে হবে। বাংলাদেশে সব শ্রমজীবী মানুষকে এইসব মানদণ্ডের ভেতরে নিয়ে আসতে হবে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, আমরা দেখছি মালিকরা যার যার নিজস্ব ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে মিডিয়াকে ব্যবহার করছেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য, রাজশাহী বিভাগ সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান চৌধুরী প্রমুখ।

দৈনিক কিশোরগঞ্জ
দৈনিক কিশোরগঞ্জ
এই বিভাগের আরো খবর